নীতিহীন মেধাবী নিয়ে কী করবে বাংলাদেশ?

নীতিহীন মেধাবী নিয়ে কী করবে বাংলাদেশ?

নীতিহীন মেধাবী নিয়ে কী করবে বাংলাদেশ?

লেখকঃ আসিফ ইমতিয়াজ

(প্রভাষক, ব্যবস্থাপনা তথ্য বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।)

এই তিন মহা প্রতারক ও তাদের সঙ্গী- রিজেন্ট গ্রুপের শহিদ করিম ও জেকেজে আরিফ এবং ডাঃ সাবরিনার কর্মকাণ্ডে বাংলাদেশের মানুষ বেশ কিছুদিন ধরেই ক্ষুব্ধ। ভয়ানক মহামারীর মুখেও প্রতারণার জাল বিস্তার করে সম্পদের পাহাড় গড়ে তোলাটা ছিল অধিকাংশ মানুষের কাছেই কল্পনাতীত। জীবাণুর অনুভূতি ও সংবেদন থাকলে করোনাভাইরাস নিজেই শাহেদ-সাবরিনাকে দেখতে লজ্জা পেত। এর আগে গণমাধ্যমের তৎপরতার কারণে স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে নেওয়া ১০ কোটি টাকায় মাত্র চারটি ভিডিও তৈরির প্রক্রিয়া বন্ধ রয়েছে।

দুর্নীতির বাগানে দুটি নবজাতক গোলাপের মতো ফুটছে এসব ঘটনা। একটি সরকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের জুম মিটিংয়ে উপস্থিতি ৫০ টাকা খরচ করে। প্রাতঃরাশ এবং জল এবং স্টেশনারি আইটেমের জন্য 57 লক্ষ টাকা। এমন মানুষের সংখ্যা নেহাত কম নয়।

মহাপ্রতারক সাহেদের মতো কিছু ব্যতিক্রম বাদ দিয়ে এসব দুর্নীতির মূল দোষীদের পর্যালোচনা করা হলে এক ভয়াবহ সত্য সামনে চলে আসে। অর্থাৎ এইসব ব্লকবাস্টার, জালিয়াতি, দুর্নীতির মধ্যে যারা সেরা কাজ করেছে, তারা সবাই দেশের উচ্চ শিক্ষিত ও ‘মেধাবী’ সন্তান যারা বিভিন্ন পরীক্ষায় মেধার স্বাক্ষর রেখেছে।

ডাঃ সাবরিনা আরিফ চৌধুরী ছিলেন একজন কার্ডিয়াক সার্জন, পি কে হালদার, একজন প্রকৌশলী যিনি বুয়েট পাস করেন এবং কানাডায় পালিয়ে যান।

জুমের বৈঠকে অস্বাভাবিক খরচ দেখিয়ে যারা রুপার দামে বন্টি কিনতে গেছেন তারা সবাই প্রথম শ্রেণির সরকারি কর্মকর্তা। বাংলাদেশ এখন বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মেধাবী দুর্নীতিবাজ ও প্রতারকদের দ্বারা জর্জরিত। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, গত বছর শিক্ষা খাত বাংলাদেশের অন্যতম দুর্নীতিগ্রস্ত খাত। যাদের মেধা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই তাদের নীতি-নৈতিকতার এই জীর্ণ দশার কারণ কী?

এর উত্তর খুঁজতে হলে ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাজীবনের প্রথম দিকে ফিরে যেতে হবে। ছোট, কোমল হৃদয়ের শিশুরা যখন নিজেদের থেকে বড় ব্যাগ কাঁধে নিয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া শুরু করে, তখন তাদের চোখে আনন্দের চেয়ে আতঙ্ক বেশি থাকে। আমাদের মা-বাবা চান তাদের সন্তানরা আইনস্টাইনের কাছে, চিত্রকলায় পাবলো পিকাসোর, খেলাধুলায় সাকিব আল হাসান, সঙ্গীতে রুনা লায়লা বা সঙ্গীতে কিশোর কুমারের কাছে রাতারাতি পড়াশোনা করুক।

বাবা-মায়েরা এই শিশুদের কাছে শেখার আনন্দের চেয়ে সাফল্যের গুরুত্বকে বেশি গুরুত্ব দেয়। কিন্তু আনন্দের সাথে শেখার ফলে যে দীর্ঘমেয়াদী সাফল্য আসে, এই ছোট ধারণাটি বড় মস্তিষ্কে প্রবেশ করতে পারে না। এই পরাজয়ের শুরু।

ধ্বংসের বীজ তখন বাড়তে শুরু করে যখন অন্ধ বাবা-মা, তাদের সন্তানকে প্রথম-দ্বিতীয় করার নেশায়, মৌলিক নৈতিক শিক্ষার প্রতি উদাসীনতা দেখাতে শুরু করে। অনেক অভিভাবক কিশোর বয়সে তাদের সন্তানদের আচরণগত ত্রুটিগুলি এড়িয়ে যান, যদি তাদের সন্তানরা ভালো করে।

ক্লাসে ভালো রেজাল্ট করা এক ধরনের সাফল্য, কিন্তু ভালো মানুষ হওয়াটাই জীবনের আসল সাফল্য। বেশিরভাগ অভিভাবক সাফল্য এবং অর্জনের মধ্যে পার্থক্য খুঁজে বের করতে আগ্রহী নন। আর এই অবহেলা থেকেই জন্ম নেয় বুয়েটের আবরার ফাহাদের খুনি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবু বকরের খুনি। এই খুনিরা সবাই মেধাবী ছিল, কিন্তু হয়তো আশেপাশের সবাই তাদের জীবনে ভালো মানুষ হতে বলেনি যেভাবে তারা পরীক্ষায় ভালো করতে বলেছিল। অবশ্য অনেক সময় চাইলেও পড়াতে পারবেন না। কারণ শিশুরা অনুকরণ করতে ভালোবাসে।

সীমিত আয় নিয়ে জন্মগ্রহণকারী একটি শিশুর অভিভাবক, যদিও তিনি প্রচুর সম্পদের মালিক হন, তার কোমল হৃদয় এটিকে স্বাভাবিক হিসাবে গ্রহণ করবে। সে যদি আপেক্ষিকভাবে দরিদ্র তার আত্মীয়কে সম্মান করতে না শেখে, তাহলে তার নৈতিক মূল্যহীনতার দায় কে নেবে?

* কাঁঠালের বীজ বপন করে ফজলি আমের আশা কতটা যৌক্তিক?

যদিও সব ধরনের শিক্ষা পরিবার থেকেই শুরু হয়, তবুও শুধু পরিবারকে দোষারোপ করে লাভ নেই। আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা শিক্ষার্থীদের নৈতিকতাকে আত্তীকরণ করতে কতটা সাহায্য করছে? জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের ওয়েবসাইটে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষার পাঠদান তৃতীয় শ্রেণি থেকে শুরু হয়ে এসএসসি পরীক্ষার মাধ্যমে শেষ হয়।

তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, দুই থেকে পাঁচ বছর বয়সের মধ্যে শিশুরা মানবিক গুণাবলীর বিকাশ ঘটায় এবং নৈতিক মূল্যবোধের বিকাশ ঘটায়। তাই বাংলাদেশে নৈতিক শিক্ষা শুরুর সময়কাল প্রথম শ্রেণির দুই বছর আগে নির্ধারণ করা যেতে পারে।

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃক প্রকাশিত দুর্নীতির ধারণা সূচক 2019-এ বাংলাদেশের অবস্থান 146তম। বিশ্বের সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ সুইডেন ও আইসল্যান্ডের পাঠ্যসূচিতে ধর্ম ও নৈতিক শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। বিশ্বের বাকি অংশে, ধর্মীয় ও নৈতিক শিক্ষা সাধারণত প্রথম শ্রেণি থেকে, জার্মানিতে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত এবং বাকি বিশ্বে দশম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ানো হয়। এর অর্থ হল তাদের সন্তানরা তাদের পরিবার থেকে মানবিক গুণাবলী অর্জন করে।

অন্য কথায়, সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশের কিছু শিশু তাদের পরিবার থেকে মানবিক গুণাবলী অর্জন করে। অনেক শিশু আমাদের সন্তানদের কাছ থেকে নৈতিক শিক্ষা পেতে শুরু করেছে দুই বছর আগে। যাইহোক, ধর্মীয় বা নৈতিক শিক্ষা আর গণিত দিয়ে দাঁড়াতে পারে না। সন্তান গণিত ও বিজ্ঞানে কম নম্বর পেলে অভিভাবকরা যেভাবে শোকের গান শুরু করেন, তার সন্তান নৈতিক শিক্ষায় ভালো নম্বর না পেলে মন খারাপ করবেন না। এখানেই দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন দরকার।

গণিত-ইংরেজিতে ছেলেমেয়েরা কম নম্বর পাওয়া ভয়ের বিষয় নয়, সঠিক অনুশীলনের মাধ্যমে এই দুর্বলতা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। কিন্তু নৈতিক শিক্ষায় একটি শিশুর কম স্কোর পাওয়া অবশ্যই অভিভাবকদের গভীর উদ্বেগের কারণ এবং অতিরিক্ত মনোযোগের দাবি রাখে। প্রাথমিক শিক্ষার কয়েকটি ধাপ অতিরিক্ত ফলাফল ছাড়া আনন্দদায়ক হলে শিশুদের উপকারে কোনো ক্ষতি নেই।

প্রথম থেকে তৃতীয় শ্রেণী পর্যন্ত পরীক্ষা না থাকলে কী হবে? শিশুরা মনের আনন্দে স্কুলে যাবে, খেলাধুলা করবে, একে অপরের সাথে একসাথে সামাজিক জীবনের গুরুত্ব বুঝবে, বুদ্ধিবৃত্তিক খেলায় অংশ নেবে এবং তাদের মস্তিষ্ক শাণিত করবে। শ্রেণীকক্ষে, শিক্ষকরা শিশুদের শৃঙ্খলা, নৈতিকতা, মূল্যবোধ শেখাবেন এবং তাদের ভাল এবং মন্দের মধ্যে পার্থক্য করার ক্ষমতা বজায় রাখবেন। তবে মনে রাখতে হবে বিদ্যালয়ে নৈতিকতাবোধ গড়ে উঠবে এবং এর চর্চা পরিবারে হবে।

জাতি হিসেবে আমরা অনেক শিক্ষিত, এটা বেশ আশাব্যঞ্জক। কিন্তু সেই জাতির প্রতিটি সামাজিক স্তরে নীতিহীনতার এমন নির্লজ্জ প্রকাশ দেখে খুবই হতাশা লাগে। খাদ্য ও ওষুধে ভেজাল থেকে শুরু করে পাসপোর্ট অফিস এবং বিআরটিএ দালালের দৌরাত্ম্য, চাটুকারিতা থেকে আইনি ও অবৈধ সুবিধা, টাকার জন্য টকশোতে রাজনৈতিক বিশ্লেষকের শাস্তি, স্টক মার্কেট, হলমার্ক, রিজেন্ট, জেকেজি, পর্দা, বালিশ, জুম, বিতরণ আমাদের সাথে দেখায়। আমাদের চোখে আঙুল যে নীতিগতভাবে জাত, গোত্র, ধর্ম, শ্রেণী, পেশা নেই। বর্তমান প্রেক্ষাপটে এটি একটি সর্বজনীন ধারণা।

করোনাভাইরাস যদি বিশ্বব্যাপী মহামারী হয়, তবে নীতিহীনতা একটি সামাজিক মহামারী। পদ ছাড়ার পর তিনি কী করবেন তা এই মুহূর্তে জানা যায়নি। তাই আমরা যদি ছোটবেলা থেকেই স্কুলে নৈতিকতা শেখানো শুরু করি এবং পারিবারিকভাবে নৈতিকতার অনুশীলন শুরু করি, তাহলে আমরা প্রায় 10 থেকে 15 বছরের মধ্যে সামগ্রিক সুবিধা দেখতে পাব।

নীতিহীন মেধার চেয়ে সমাজে গড় মেধাসম্পন্ন ব্যক্তির সম্মান অনেক বেশি হওয়া উচিত। মেধাবী জাতির আগে ন্যায়পরায়ণ জাতি গঠনে আমাদের আরও মনোযোগ দেওয়া উচিত। নীতিহীন মেধাবীরা দেশ ও সমাজের ক্ষতি করে, মঙ্গল বয়ে আনে না। ভুলে গেলে চলবে না, ভিলেন পণ্ডিত হলেও তা পরিত্যাগ করা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *