রাজনীতি

প্রতিদিন ১০ঘন্টা পড়াশোনা করে বিসিএস ক্যাডার হলেন জামিল! নতুনদের জন্য দিলেন পরামর্শঃ

মোঃ সাফায়েত জামিল বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটে (বিআরআই) সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে কর্মরত। ৩৬তম বিসিএসে তাকে গণপূর্ত (সিভিল) ক্যাডারে সুপারিশ করা হয়েছে এবং বর্তমানে চাকরিতে যোগদানের অপেক্ষায় রয়েছেন।

তিনি চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট) থেকে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং (সিভিল) ডিগ্রি অর্জন করেছেন। সাফায়েত জামিল দ্য ডেইলি ক্যাম্পাসের সাথে বিসিএস পরীক্ষায় তার অভিজ্ঞতার পাশাপাশি নতুনদের জন্য টিপস নিয়ে কথা বলেছেন।

দি ডেইলি ক্যাম্পাস: বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন কবে?
সাফায়েত জামিল: ছোটবেলা থেকেই ইঞ্জিনিয়ার হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম। আল্লাহর রহমতে নটরডেম কলেজের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচএসসি পাস করার পর চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট) সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ পেলাম। আমি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সময় থেকেই বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম। আমার বাবা-মাও এটা চেয়েছিলেন

আমি একজন বিসিএস ক্যাডার। বিসিএসে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের চান্স অন্যান্য ইঞ্জিনিয়ারদের তুলনায় বেশি। যেহেতু ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করে দেশে থাকতে চেয়েছিলেন, সেহেতু তার স্বপ্ন ছিল বিসিএস পরীক্ষায় পাস করে সরকারি চাকরি করা। আল্লাহ তায়ালার রহমতে ৩৬তম বিসিএস পরীক্ষার মাধ্যমে আমি বিসিএস গণপূর্ত (সিভিল) ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হই।

* আপনি স্বপ্নের জন্য কীভাবে প্রস্তুতি নিয়েছিলেন এবং আপনার পড়া এবং শোনার রুটিন কেমন ছিল?
সাফায়েত জামিল: আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪র্থ বর্ষ থেকে বিসিএসের প্রস্তুতি শুরু করি। আমি বিসিএস পরীক্ষার প্রি-সিলেবাস এবং বিগত বছরের প্রশ্নের সমাধান দিয়ে বিসিএস প্রস্তুতি শুরু করেছি এবং আমি মনে করি যারা বিসিএসের স্বপ্ন দেখেন তাদেরও শুরুতেই সিলেবাস এবং বিগত বছরের প্রশ্ন পর্যালোচনা করা উচিত। পুরোদমে ইঞ্জিনিয়ারিং পাস

এর প্রস্তুতি শুরু করা যাক. আমি প্রিলিমের জন্য প্রতিদিন 8-10 ঘন্টা বিসিএস পরীক্ষার বিষয় ভিত্তিক সিলেবাস অধ্যয়ন করেছি। রিতেনের সিলেবাস অনেক লম্বা তাই পুরোপুরি প্রস্তুতি নেওয়ার জন্য প্রতিদিন প্রায় 10 ঘন্টা পড়াশোনা করেছি। ভিভার প্রস্তুতিও প্রিলিম পড়ার ক্ষেত্রে অনেক দূর এগিয়ে যায়। ভিভারের জন্য নির্দিষ্ট কোনো সিলেবাস না থাকলেও সর্বশেষ ইস্যু, নিজের জেলা থেকেই প্রস্তুতি নিচ্ছি।

* প্রস্তুতির পথে কোনো বাধা ছিল কি?
সাফায়েত জামিল: প্রস্তুতির পথে কোনো বাধা ছিল না। আব্বা-আম্মার পূর্ণ সমর্থন ছিল। তারা আর্থিক ও মানসিকভাবে শক্তিশালী হয়েছে। তারাও চেয়েছিল আমি আমার বিসিএস ক্যাডার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ করি।

ডেইলি ক্যাম্পাস: ভাইভা এবং রেটিন সম্পর্কে আরও বলুন?
সাফায়েত জামিল: বিসিএস পরীক্ষায়, আপনাকে শুধুমাত্র সাধারণ বা শুধুমাত্র কারিগরি জন্য 900 নম্বরের পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। উভয় ক্যাডারের জন্য মোট 1100 নম্বর। রিটার্ন এর পড়া অনেক বেশি। আবার, পড়াশোনার ধরনও প্রিলিম থেকে আলাদা। তাই প্রতিটি বিষয়ে আপনাকে অনেক সময় ব্যয় করতে হবে।

বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীরা গণিত, মানসিক দক্ষতা, সাধারণ বিজ্ঞান কলা বা ব্যবসায়িক অনুষদের চেয়ে একটু বেশি সহজে প্রস্তুতি শেষ করতে পারে। কলা বা ব্যবসায় অনুষদের প্রার্থীদের এসব বিষয়ে একটু বেশি সময় দিতে হয়। যারা ইংরেজিতে ভালো তাদের জন্য উভয় প্রিলিম পাস করা সহজ। তাই ইংরেজিকে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। প্রতিবার, প্রায় এক-তৃতীয়াংশ শিক্ষার্থী পরীক্ষায় ফেল করে, যার প্রধান কারণ হল তারা ইংরেজিতে ভালো করতে পারে না। সাম্প্রতিক ঘটনাবলীর বিবরণ এবং সংবিধান বাংলাদেশের বিষয় এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রিটার্নের বিষয়গুলির জন্য বাজারে ভাল গাইড বইগুলির একটি সেট অনুসরণ করা যেতে পারে। প্রিলিম এবং রিটার্নের জন্য নির্দিষ্ট সিলেবি আছে কিন্তু ভাইভারের জন্য নয়। বিসিএস ভাইভা বোর্ড অনুযায়ী প্রশ্নও ভিন্ন হতে পারে। মূল বিষয় হল ভাইভাতে নিজেকে উপস্থাপন করা। ভাইভা বোর্ডে সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম হওয়া জরুরী নয় এবং সমস্ত প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম হওয়াও সম্ভব নয়। বিষয়টি বোর্ডের কাছে প্রকাশ করতে না পারাটাই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু নার্ভাসনেসের কারণে অনেক সহজ প্রশ্নও আছে

অনেকে বিভ্রান্ত হন। ভাইভা বোর্ডে আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হতে হবে এবং আপনি যদি কোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে না পারেন, তাহলে আপনার সরাসরি যাওয়া উচিত নয়। অপ্রয়োজনীয় বোর্ডের সময় নষ্ট করা উচিত নয়। ভাইভাতে নিজের সম্পর্কে বলতে গেলে নামের অর্থ, বিখ্যাত ব্যক্তির নামের সাথে নামের মিল থাকলে, সেই বিখ্যাত ব্যক্তিদের সম্পর্কে, নিজের জেলা সম্পর্কে জানা, মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানাটা কাজে লাগবে। সংক্ষেপে, ভাইভাতে একজন প্রার্থী নিজেকে একজন আত্মবিশ্বাসী, নম্র, ভদ্র ব্যক্তি হিসেবে প্রকাশ করবেন।

দ্য ডেইলি ক্যাম্পাস: পড়ার পাশাপাশি নন-ফিকশন বা বাইরের বই পড়ার বিষয়ে আপনি কী মনে করেন?
সাফায়েত জামিল: পড়ার পাশাপাশি অন্যান্য বই পড়লে আপনার জ্ঞান বাড়বে এবং একঘেয়েমি বোধ করবে। তবে ফেরার প্রস্তুতির সময় বিসিএস সংক্রান্ত বই পড়া ভালো। কারণ ধরে রাখার জন্য যে সময় পাওয়া যায় তার বেশির ভাগই সিলেবাস পড়েই ব্যয় হয়। তবে একঘেয়েমি থেকে মুক্তি পেতে মাঝেমধ্যে বিসিএস সম্পর্কিত নিবন্ধ বা গল্পের বই পড়তে পারেন।

দৈনিক ক্যাম্পাস: আপনার আইডল কে?
সাফায়েত জামিল: আমার বাবা-মা আমার আইডল। তারা সব সময় আমার কথা ভাবে। আমার সুখ শান্তির জন্য ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা।

দ্য ডেইলি ক্যাম্পাস: ক্যাডারে দুর্নীতি, অনিয়ম, ক্ষমতার অপব্যবহার দেখা যায়, আপনি কী মনে করেন?
সাফায়েত জামিল: এটা সত্য যে, অনেকেই ক্যাডার সার্ভিসে যোগদান করে দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button