যেভাবে প্রশাসন ক্যাডারে ২য় হয়েছেন হাসিবুর রহমান এমিল!

যেভাবে প্রশাসন ক্যাডারে ২য় হয়েছেন হাসিবুর রহমান এমিল!

যেভাবে প্রশাসন ক্যাডারে ২য় হয়েছেন হাসিবুর রহমান এমিল!

হাসিবুর রহমান এমিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের 2009-2010 সেশনের ছাত্র। ৩৭তম বিসিএসে তিনি প্রশাসন ক্যাডারে ২য় স্থান অধিকার করেছেন। তার গল্প তুলে ধরেছেন- এম এম মুজাহিদ উদ্দিন।

এমিলের জ্ঞানের তৃষ্ণা বিসিএসের সাফল্যের অন্যতম চালক। তিনি বলেন, জ্ঞান অর্জনের বহু মাধ্যমগুলোর মধ্যে বই একটি মাত্র। এছাড়াও জ্ঞান অন্বেষণের অসংখ্য মাধ্যম রয়েছে। সব জায়গা থেকে জ্ঞান নেওয়ার চেষ্টা করছিলাম। বিভিন্ন ওয়ার্কশপ, সেমিনার, আলোচনা সভায় গিয়ে বসতাম। কেন জানি এসব অনুষ্ঠানের প্রতি এত আকৃষ্ট হলাম। ছোটবেলা থেকেই প্রচুর বই-পত্রিকা পড়তাম। সম্ভবত একটি ফ্যাক্টর কেন তারা এত খারাপভাবে করছেন।

হাসিবুর রহমান এমিল মানিকগঞ্জ জেলার কাকুরিয়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ড. রওশন উদ্দিন আহমেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। আর মা এ্যানি আহমেদ একজন গৃহিণী।

ছোটবেলা থেকেই নিয়মিত পড়াশোনা করতেন। তাই প্রথম শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত আপনি সর্বদাই প্রথম হয়েছেন। খাবাশপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৫ম শ্রেণীতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পান। সাফল্যের পর তিনি খবরপুর লাবণ্য প্রভা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৮ম শ্রেণী থেকে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পান। একই বিদ্যালয়ের মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র গন্ডি পেরন 2005 সালে ওই বিদ্যালয়ের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো জিপিএ-5 পায়। তারপর সে সরকারি দেবেন্দ্র কলেজ থেকে জিপিএ-5 নিয়ে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে।

কলেজটি সফলভাবে শেষ করার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউটের বিএসসি ইন ফুটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ভর্তি হন। কিন্তু তার ইচ্ছা ছিল মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে উচ্চতর পড়াশোনা করার, তাই দ্বিতীয়বার ভর্তি পরীক্ষা দিয়ে ভর্তি হন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে।

এমিল শুরু থেকেই নিয়মিত পড়াশোনা করত। ৪র্থ বছর থেকে তিনি GRE-এর জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত ছিলেন। অনার্সে সিজিপিএ ৩.৯৫ সহ ৩য় স্থান অর্জন করেছে। আরও ভালো ফলাফলের জন্য, আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ICDDRB-এর ভাইরোলজি ল্যাবে মাস্টার্স থিসিস করার সুযোগ পান। মাস্টার্স থিসিসের জন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ফেলোশিপ পান। সিজিপিএ ৩.৭৬ সহ মাস্টার্স শেষ করে ৬ষ্ঠ স্থান অর্জন করেছে।

মূলত মাস্টার্স শেষ করে বিসিএসের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া। এমিলের প্রস্তুতি পরিবার এবং বন্ধুদের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল। ৩৫তম বিসিএসে নন-ক্যাডার হিসেবে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউসে সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেন। এমিল বলেন, আমি বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে কাজ করতে চেয়েছিলাম। তাই পরবর্তী বিসিএসের জন্য নিজেকে ভালোভাবে প্রস্তুত করে ৩৬তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডারে ২য় স্থান অর্জন করি। এছাড়াও কিছুদিন আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের সহকারী পরিচালক পদে সুপারিশ পেয়ে কিছুদিন কাজ করেছি।

একই সময়ে, এমিল যোগ করেছেন যে বিসিএস এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের মতো দুটি উচ্চ প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্যের পিছনে তার কৌশলগত প্রস্তুতি রয়েছে। প্রশাসন ক্যাডার কর্তৃক তার উপর অর্পিত দায়িত্ব বিশ্বস্ততার সাথে পালন করাই তার ভবিষ্যৎ লক্ষ্য। হাসিবুর রহমান এমিলেরও উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশে যাওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

@ এম এম মুজাহিদ উদ্দিন।

সংগৃহীত এবং পরিমার্জিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *