যে কারণে বিসিএস ছেড়ে মানবাধিকার কর্মী হলেন নিশাত সুলতানা!

নিশাত সুলতানা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে পড়াশোনা করেছেন। তিনি ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটিতে ইংরেজির লেকচারার হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন। পরে তিনি বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থায় যোগ দেন। তিনি একজন কলামিস্ট, শিশু লেখক এবং মানবাধিকার কর্মী। তিনি “কনসার্ন ইউনিভার্সাল এবং সেভ দ্য চিলড্রেনে” গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে ব্র্যাকের উন্নয়ন সংস্থায় কর্মরত।

তিনি ২৬তম বিসিএসে যোগদান করেন এবং প্রশাসন ক্যাডারের অধীনে সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কিছুকাল দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর শিশুতোষ গ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল ‘নিপুর রঙিন একদিন’, ‘সবর বন্ধু পিকু’ এবং ‘ক্রিকেট পাগল গেছো ভুতের কথা’।

এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের বিভিন্ন অনুষ্ঠানের সাথে জড়িত। তার বর্ণিল, সৃজনশীল জীবনের গল্প নীচে দেওয়া হল:

প্রশ্ন: আপনার শৈশব ও কৈশোর কেমন ছিল?

নিশাত সুলতানা: আমার জন্ম উত্তরবঙ্গের নওগাঁ জেলায়। শৈশব ও কৈশোরের বেশিরভাগ সময় কেটেছে নওগাঁ জেলা শহরে। বাবার কর্মজীবনের মাঝামাঝি প্রায় চার বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায় কাটিয়েছি। আমার মাও চাকরি করতেন, পেশায় শিক্ষক ছিলেন। আমরা দুই বোন; আমি ছোট তাই একটু বেশি আদর পেয়েছি। কিন্তু আমার বাবা-মা খুব বাস্তববাদী ছিলেন। তারা কখনোই অন্যায় কামনায় লিপ্ত হয়নি। আমাদের দুই বোনই বাস্তব জীবনে

বিভিন্ন প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে শিখেছে। দুই কন্যা সন্তানের পর আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে পুত্র সন্তানের সামাজিক চাপের মুখে পড়েছেন তারা। তারা চেয়েছিল যে আমরা সুশিক্ষিত ও স্বাবলম্বী হই।

আমার বড় বোন নাহিদ সুলতানা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে সহযোগী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত। ছোটবেলা থেকেই তিনি ছিলেন অত্যন্ত মেধাবী। ছোট বোন হিসেবে আমি প্রথম দিন থেকেই ভালো করার চাপ অনুভব করেছি; যা আমার শিক্ষাজীবন জুড়ে অব্যাহত ছিল। মা ছিলেন অত্যন্ত পরিশ্রমী ও সংস্কৃতিমনা। তিনি আমাদের দুই বোনকে পড়াতেন। আমাদের গান, নাচ তার কাছে হাতকড়া। প্রতি বছর স্কুলের বার্ষিক সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার কথা মনে পড়ে

পুরস্কার বিতরণের দিন আমরা মায়ের হাতে অনেক পুরস্কার তুলে দিতাম। শিশু একাডেমি, শিল্পকলা একাডেমি, একুশে পরিষদ ও আবৃত্তি পরিষদে আমাদের নিয়মিত যাওয়া হতো। 1999 সালে, আমি রবীন্দ্র সঙ্গীতের জন্য বাংলাদেশ বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পী হয়েছিলাম। খুব বেশি খেলার সুযোগ পাননি। কিন্তু বন্ধু বা কাজিনদের কাছ থেকে যখনই পেতাম কুমির-কুমির, বরফ-পানি, চোর-ডাকাত-ইন্সপেক্টর-পুলিশ, ওপেনটি বায়োস্কোপ, লুডু, নাম-দেশ-ফল-ফুল খেলতাম।

প্রশ্ন: শিক্ষাজীবনের গল্প শুনতে চাই। পড়াশোনায় কোনো বাধা ছিল কি?

নিশাত সুলতানা: আমি বরাবরই পড়াশোনায় ভালো। আমি ৫ম শ্রেণীতে ট্যালেন্টপুলে বৃত্তি পেয়েছি। আমি নওগাঁ সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণীতে ভর্তি হই। নতুন স্কুলে ভর্তি হওয়ার সাথে সাথে আমার জন্ডিস হয়। বেশ কয়েকদিন হাসপাতালে থাকতে হয়েছে। ষষ্ঠ শ্রেণির প্রথম অন্তর্বর্তী পরীক্ষা দিতে পারিনি। আমি কিছুক্ষণের জন্য থেমে গেলাম। এরপর আবার অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে জন্ডিস। দুবার পড়ালেখা মারাত্মকভাবে জন্ডিসে আক্রান্ত হয়। তার স্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে তার বাবা-মা তাকে পড়াশোনার জন্য খুব একটা চাপ দেননি।

দিন দিন পিছিয়ে পড়ছি। শিক্ষকদের ভয়ে ক্লাসের শেষ বেঞ্চে বসতে লাগলাম। কিন্তু অষ্টম শ্রেণির শেষের দিকে, আমি হঠাৎ বুঝতে পারি যে এটি দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে না। আমাকে ঘুরতে হবে। আমি বদলাতে শুরু করলাম। আমার নিজের প্রচেষ্টায় এবং আমার বাবা-মা ও শিক্ষকদের আন্তরিক সহযোগিতায় আমিও অষ্টম শ্রেণিতে বৃত্তি পেয়েছি। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। এসএসসি পরীক্ষায় রাজশাহী বিভাগ থেকে সম্মিলিত মেধা তালিকায় অষ্টম স্থান অধিকার করেছিলাম। নওগাঁ সরকারি কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক শেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে ভর্তি হই। সেখান থেকে আমি স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করি।

আমরা বাবাকে খুব কাছের বন্ধু হিসেবে পেয়েছি। তিনি তার পড়াশুনাকে প্রবলভাবে উৎসাহিত করতেন। অন্য শিক্ষকের নাম উল্লেখ না করে ড. তিনি হলেন আমার শ্রদ্ধেয় ইংরেজি শিক্ষক মির্জা নজরুল ইসলাম। সে আমার মধ্যে আত্মবিশ্বাস জাগিয়েছে, আমাকে স্বপ্ন দেখতে শিখিয়েছে।

পারিবারিক দৃষ্টিকোণ থেকে পড়াশোনা করতে আমি কখনো কোনো বাধার সম্মুখীন হইনি। তবে কলেজ লাইফে একটা মেধাবী ছেলে প্রতিদিন কলেজে আসা-যাওয়ার পথে আমাকে উত্যক্ত করত। দিন দিন এর মাত্রা বাড়ছে। তখন জীবন অতিশয় দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। শেষ পর্যন্ত নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে সাময়িক

কলেজে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেল। যাইহোক, আমি মানসিকভাবে খুব আত্মবিশ্বাসী ছিলাম। সব সময় শিক্ষকদের সহযোগিতা পেয়েছি। মেধা তালিকায় স্থান না পেলেও সফলতার সাথে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি। আজও, আমি মনে করি আমি এইচএসসি পরীক্ষায় আরও ভাল ফলাফল করতে পারতাম যদি আমি সেই কেলেঙ্কারীতে বিরক্ত না হতাম।

প্রশ্ন: কী ধরনের ক্যারিয়ারের স্বপ্ন দেখেছিলেন? আমি ক্যারিয়ার যাত্রার গল্প এবং জীবনের চ্যালেঞ্জ শুনতে চাই।

নিশাত সুলতানা: এসএসসি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় স্থান পাওয়ার পর সাংবাদিকরা যখন প্রশ্ন করি, ‘বড় হয়ে আমি কী হতে চাই?’ আমি উত্তর দিয়েছিলাম, ‘আমি উচ্চশিক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি সাহিত্য পড়াতে চাই।’ আমার কর্মজীবনের শুরু ছিল। স্নাতকোত্তর নিয়ে ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটিতে গিয়েছিলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *